নতুন ভারত গঠনের মূলস্রোতে ত্রিপুরাকে যুক্ত করার ক্ষেত্রে ওএনজিসি এক বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করবে : কেন্দ্রীয় পেট্রোলিয়াম মন্ত্রী
নতুন ভারত গঠনের মূলস্রোতে ত্রিপুরাকে যুক্ত করার ক্ষেত্রে ওএনজিসি এক বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করবে : কেন্দ্রীয় পেট্রোলিয়াম মন্ত্রী

আগরতলা, ২ মার্চ।। ও এন জি সি’র গর্বা গ্রাউন্ডে আজ ও এন জি সি’র সোনামুড়া গ্যাস সংগ্রহ কেন্দ্র দেশের জন্য উৎসর্গ করা হয়। একই সঙ্গে পশ্চিম ত্রিপুরা জেলা জি এ –তে প্রথম পি এন জি কানেকশনের সূচনা, গোমতী জেলার জি এ তে প্রথম সি এন জি স্টেশন এবং আগরতলায় ন্যাশনাল স্কিল ট্রেনিং ইনস্টিটিউট ফর উইমেন-এর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন এই চারটি প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক সূচনা করেন কেন্দ্রীয় পেট্রোলিয়াম ও প্রাকৃতিক গ্যাস এবং দক্ষতা বৃদ্ধি মন্ত্রকের মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান এবং ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে কেন্দ্রীয় পেট্রোলিয়াম মন্ত্রী শ্রীপ্রধান বলেন, ত্রিপুরায় সব থেকে বেশি রাজস্ব ও এন জি সি’র রয়্যালিটি এবং সেস থেকে আসে। ভারতবর্ষের মধ্যে যতগুলি ডোমেস্টিক গ্যাস উৎপাদন রাজ্য রয়েছে তার মধ্যে ত্রিপুরা অন্যতম। তিনি বলেন, ত্রিপুরায় অধিক পরিমাণে গ্যাস উৎপাদন হওয়ায় স্বাভাবিকভাবে ত্রিপুরায় আয় বৃদ্ধি পাবে। একই সঙ্গে ত্রিপুরার নাগরিকদের জন্য শিল্প, ঘরোয়া গ্যাস সংযোগ এবং পরিবহন ব্যবস্থায় গ্যাস সংযোগের ফলে ত্রিপুরার অর্থনীতির উন্নয়ন ত্বরান্বিত হবে। রাজস্ব এবং রোজগার বৃদ্ধিতে উভয় ক্ষেত্রে ত্রিপুরা লাভবান হবে। তিনি মুখ্যমন্ত্রীকে আশ্বস্ত করে বলেন, ত্রিপুরায় বিভিন্ন পাওয়ার প্ল্যান্ট, ডোমেস্টিক ইন্ডাস্ট্রি, পরিবহন সেক্টর সহ ঘরোয়া গ্যাস সরবরাহের জন্য যে পরিমাণ গ্যাস প্রয়োজন হবে তা ও এন জি সি পূরণ করবে।

অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব বলেন, কেন্দ্র এবং রাজ্য একই সরকার ক্ষমতাসীন হওয়ার ফলে ত্রিপুরা রাজ্য লাভবান হয়েছে। তিনি বলেন, রাজ্য সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সমস্ত পিচ রাস্তার দুধারে ফুল ও ফলের গাছ লাগানো হবে। রাস্তার পাশে যেসব পরিবার বসবাস করেন তারা এই ফুল ও ফলের গাছের রক্ষণাবেক্ষন করবেন। এরজন্য প্রতিটি পরিবারকে মাসে দুইশত টাকা করে দেওয়া হবে। তার জন্য প্রয়োজনীয় পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে রাজ্য সরকার। তিনি বলেন, বাজেটের বাইরেও রাজ্যের উন্নয়নের জন্য অতিরিক্ত ১৮০০ কোটি টাকা প্রদান করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। বর্তমান রাজ্য সরকার রাজ্যের উন্নয়নের জন্য স্বচ্ছ নীতি নিয়ে কাজ করছে। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ওএনজিসি’র ডিরেক্টর (অনশোর) সঞ্জয় কুমার মিত্র। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন ও এন জি সি’র সি এম ডি শশী শংকর, টি এন জি সি এল-এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়, ত্রিপুরার ও এন জি সি’র এসেট ম্যানেজার জি কে সিংহরায়।

আরো পড়ুন

FACEBOOK

Advertisement