ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে সহায়তার জন্য অর্থ দপ্তরে হেল্প ডেস্ক খোলা হবে : উপমুখ্যমন্ত্রী
ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে সহায়তার জন্য অর্থ দপ্তরে হেল্প ডেস্ক খোলা হবে : উপমুখ্যমন্ত্রী

আগরতলা, ২ জুন।। বর্তমান সময়ে সমগ্র বিশ্ব কোভিড-১৯ এবং অর্থনৈতিক সমস্যার সম্মুখীন। জনসংখ্যার বিশালতার কারণে ভারতবর্ষও আজ কঠিন পরিস্থিতির সম্মুখীন। এই সমস্যা থেকে উত্তরণে সরকার, জনগণ ও সংবাদমাধ্যমকে একযোগে কাজ করতে হবে। আজ উপমুখ্যমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে একথা বলেন উপমুখ্যমন্ত্রী যীষ্ণু দেববর্মা। সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি আরও বলেন, দেশের উন্নয়নে ৫টি বিষয় যেমন অর্থনীতি, পরিকাঠামো, পদ্ধতি, জনবিন্যাস এবং চাহিদা ও সরবরাহের উপর দাঁড়িয়ে রয়েছে। দেশের বিরাট অংশের মানুষ কৃষি ও দৈনিক কাজের সাথে যুক্ত। কোভিড-১৯ এর জন্য উদ্ভুত পরিস্থিতির ফলে কাজ ও খাদ্যের যোগানের যাতে অভাব না হয় সেদিকে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার বিশেষ লক্ষ্য রাখছে। বর্তমান পরিস্থিতির দিকে নজর রেখে কিছুদিন আগে কেন্দ্রীয় সরকার ২০ লক্ষ কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছে।

সাংবাদিক সম্মেলনে উপমুখ্যমন্ত্রী বলেন, নগদ অর্থ প্রদান কোনও সমস্যার স্থায়ী সমাধান হতে পারে না। তাই একে রিলিফ প্যাকেজ হিসেবে দেখা উচিত নয়। সরকার এই আর্থিক প্যাকেজের মাধ্যমে দেশের সার্বিক পরিকাঠামোগত উন্নয়নে সচেষ্ট হয়েছে। দেশের এম এস এম ই-এর বিকাশে বিশেষ নজর দেওয়া হচ্ছে। এক্ষেত্রে রাজ্যেও ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে সহায়তার জন্য অর্থ দপ্তরে হেল্প ডেস্ক খোলা হবে। তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশের সাধারণ মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টাতে সক্ষম হয়েছেন। এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ হলো জনধন অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে ব্যাঙ্কিং পরিষেবাকে সাধারণ মানুষের নাগালে নিয়ে আসা। এই সময়ে দেশের উন্নতিতে প্রয়োজন সঠিক দৃষ্টিভঙ্গির। এখানে স্লোগানের কোনও স্থান নেই। কোভিড-১৯ এর এই কঠিন ও দীর্ঘ চ্যালেঞ্জ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মহামন্ত্র ‘সবকা সাথ সবকা বিকাশ সবকা বিশ্বাস’ এর মাধ্যমে কাটিয়ে উঠা যাবে। সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, এই কঠিন সময়ে সমস্ত রাষ্ট্র এক হয়ে সমস্যার সমাধান করতে পারবে।

সাংবাদিক সম্মেলনে উপমুখ্যমন্ত্রী বলেন, কোভিড-১৯ মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি প্রত্যেকটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সাথে কথা বলে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করছেন। এর মাধ্যমেই বোঝা যায় যে বর্তমানে দেশে যুক্তরাষ্ট্রীয় গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা শক্তিশালী রয়েছে। রাজ্যে কোভিড-১৯ পরিস্থিতির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, উদ্বেগের কিছু নেই। কোভিড-১৯ এর মোকাবিলায় কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে ঠিক তেমনি রাজ্যের অর্থনৈতিক কর্মকান্ড চালু রাখতেও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

আরো পড়ুন

FACEBOOK

Advertisement