মাটির তলায় ২২৭টি বলিপ্রদত্ত শিশুর দেহাবশেষ! বিস্মিত প্রত্নতত্ত্ববিদরা
মাটির তলায় ২২৭টি বলিপ্রদত্ত শিশুর দেহাবশেষ! বিস্মিত প্রত্নতত্ত্ববিদরা

ওয়েব ডেস্ক, ২৮ আগষ্ট।। মাটি খুঁড়ে মিলল বলিপ্রদত্ত ২২৭টি শিশুর দেহাবশেষ! পেরুতে প্রত্নতত্ত্ববিদরা মাটি খুঁড়ে উদ্ধার করলেন প্রাচীন চিমু সভ্যতায় বলিপ্রদত্ত অসংখ্য শিশুর দেহ। আজ পর্যন্ত এত সংখ্যক শিশুর বলিপ্রদত্ত দেহ উদ্ধারের ঘটনা ঘটে‌নি। গত বছরের শেষ থেকে রাজধানী লিমার উত্তরে অবস্থিত হুয়ানচাকোতে খননকার্য চালাচ্ছে‌ন প্রত্নতত্ত্ববিদরা। হুয়ানচাকোতে শিশু বলি দেওয়ার প্রথা ছিল প্রাচীনকালে। মুখ্য প্রত্নতত্ত্ববিদ ফেরেন ক্যাস্টিল্লো মঙ্গলবার জানান, ‘‘একসঙ্গে এতগুলি বলিপ্রদত্ত শিশুর দেহের সন্ধান এর আগে পাওয়া যায়নি। এটাই সবথেকে বড় ঘটন‌া।'' তিনি জানান, চিমু সভ্যতায় ৪ থেকে ১৪ বছরের শিশু ও বালক-বালিকাদের বলি দেওয়ার প্রথা ছিল। ঈশ্বরকে তুষ্ট করতেই এই বলি দেওয়া হত বলে জা‌নান তিনি।

তিনি বলেন, ‘‘এল নিনোকে প্রশমিত করতেই এই শিশুদের বলি দেওয়া হত।'' তিনি এও বলেন, এখনও আরও দেহ উদ্ধার হওয়ার সম্ভাবন‌া রয়েছে। তিনি বিস্মিত হয়ে বলেন, ‘‘ব্যাপারটা এখনও নিয়ন্ত্রণে আনা যায়নি। যেখানেই খোঁড়া হচ্ছে আরও একটা শিশুর মৃতদেহ পাওয়া যাচ্ছে!''

বলিপ্রদত্ত শিশুদের দেহ এমন ভাবে রাখা, যাতে তাদের মুখ থাকে সমুদ্রের দিকে। সম্ভবত এটা ওই নিষ্ঠুর প্রথারই কোনও নিয়ম। কোনও কোনও শরীরে এখনও চামড়া ও চুলের অস্তিত্ব রয়েছে।

১২০০ থেকে ১৪০০ খ্রিস্টাব্দে চিমু সভ্যতায় শিশুদের বলি দেওয়ার মর্মান্তিক প্রথা চালু ছিল। ২০১৮ সালের জুনে প্রথমবার এই খনন অঞ্চলের কাছে পাম্পা লা ক্রুজে প্রত্নতত্ত্ববিদরা ৫৬টি কঙ্কাল পান। তার আগে ওই বছরেরই এপ্রিল মাসে হুয়াচাকুইতোতে ১৪০টি শিশু ও ২০০টি লামার দেহ উদ্ধার হয়। পেরুর উপকূল থেকে ইকুয়েডর পর্যন্ত বিস্তৃত চিমু সভ্যতা ১৪৭৫ সালে অবলুপ্ত হয়। ইনকা সভ্যতা এই সভ্যতাকে জয় করে নেয়। 

আরো পড়ুন

Advertisement